Logo
নোটিশ :
mreducationnews24.com এ আপনাকে স্বাগতম

জোট বেঁধে আন্দোলন করার এখনই সময়

রিপোর্টার / ১২১ বার
আপডেটের সময় : রবিবার, ২৮ মে, ২০২৩

নাগ‌রিক ঐক্যর সভাপ‌তি মাহমুদুর রহমান মান্না ব‌লেছেন, সামনে সময় এসেছে, জোট বেঁধে আন্দোলন করে সরকারের পতন নিশ্চিত করার। এই সরকারের দেশের তো সমর্থন নেই, বিদেশের সমর্থনও চলে গেছে। শ‌নিবার (২৭ মে) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মায়ের ডাক ব্যানারে আন্তর্জাতিক গুম দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত ‌‘গুম বন্ধ কর, গুমের শিকার ব্যক্তিদের ফিরিয়ে দাও’ শীর্ষক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

নাগ‌রিক ঐক্যর আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, বিদেশিদের কাছে এই সরকার ফ্যাসিস্ট অবৈধ সরকার হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। নির্বাচন যাতে নিজেদের মতো হয়, নিজেদের মতো করতে পারে সরকারের সেই কাজে যারা বাধা দেয় বা বিরোধিতা করে তাদেরকেই গুমের শিকার হতে হয়। বিদেশি চাপে এই সরকার বর্তমানে বিপদে আছে। র‌্যাব দিয়ে, রাষ্ট্রীয় বাহিনী দিয়ে গুম করা হতো সেটা বন্ধ হয়েছে। সামনে সময় এসেছে, জোট বেঁধে আন্দোলন করে সরকারের পতন নিশ্চিত করতে হবে।

বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক ব‌লেন, গুম হওয়াদের উদ্ধারের জন্য আজও তাদের ছেলেমেয়েদের চোখের পানি ঝরাতে হয়। যাদের ভাই, বাবা গুম হয়েছে তাদেরকে আজও কাঁদতে কাঁদতে দাবি জানাতে হয় এই অবৈধ সরকারের কাছে। বছরে শত শত মানুষ গুম হচ্ছে সরকারের কোনো পদক্ষেপ নাই। রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস বিচারবহির্ভূত হত্যা এইসবের কারণেই র‍্যাব নিষেধাজ্ঞায় পড়েছে আর এতেই গুম খুন বন্ধ হয়ে গেছে। এই ঘুম খুনের সাথে রাষ্ট্রীয় বাহিনী যুক্ত। গুমের বিষয়ে সরকার কোনো ব্যাখ্যা দিতে পারে নাই। রাষ্ট্রীয় বাহিনী গুমের সাথে যুক্ত। নতুন নতুন নিষেধাজ্ঞা আসবে। রাষ্ট্রের ওপরও নিষেধাজ্ঞা আসছে। আওয়ামী লীগের ক্ষমতার দিন ফুরিয়ে গেছে। এখন ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন করে সরকারের পতন নিশ্চিত করতে হবে।

চিত্রশিল্পী শহীদুল আলম বলেন, বলা হয় এটা স্বাধীন দেশ কিন্তু এই দেশ এখনো স্বাধীনতার ছোঁয়া পায়নি। সে দেশে আমরা বসবাস করছি। আমি নিজেও গুমের শিকার হয়েছিলাম। রাষ্ট্রীয় বাহিনী বলেছে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমার গুমের বিষয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে পুলিশ একটা জিডি পর্যন্ত নেয়নি। পাঁচ বছরে এখন পর্যন্ত এখন পর্যন্ত চার্জশিট দিতে পারেনি। আমি সমাজে পরিচিত তাই এই অবস্থা, যারা অপরিচিত তাদের কি অবস্থা। স্বাধীনতা এমনি আসে নাই ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলন করতে হবে শক্তিকে কাজে লাগাতে হবে তাহলেই দেশে গুমখুন বন্ধ হবে।

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল বলেন, গুম হওয়াদের খোঁজে সরকারের কোনো পদক্ষেপ নেই। সরকারকে বলি মায়ের ভালোবাসা চ্যালেঞ্জ করে লাভ নাই। আশা ছাড়ছি না, আইনের কাঠগড়ায় আপনাদেরকে দাঁড়াতেই হবে। আমরা ঐক্যবদ্ধ থাকি আন্দোলন চলমান রাখি।

নুর খান লিটন বলেন, গুমের শিকার সবাইকে ফিরিয়ে দিতে হবে। দেশে পরিবর্তনের হাওয়া বইছে। যারা রাষ্ট্র পরিচালকের আসনে আছেন তারা বলেন যে, এরা গুম হয় নাই, কেউ ঋণের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে, কেউ মামলার ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে, এইসব বলে বলে সরকার রাষ্ট্রীয় বাহিনীকে উসকে দিচ্ছে। কিন্তু আমরা গুম হওয়াদের কোনো সন্ধান পাচ্ছি না। যারা এদেরকে গুম করে রেখেছেন সেই সমস্ত সংস্থার প্রধানদের বলি সাবধান হয়ে যান। সমস্ত তথ্য আমাদের কাছে আছে আগামীতে  বিচারের আওতায় আনা হবে।

ফরিদা আকতার বলেন, যারা গুম হয়েছে তাদের বাচ্চাদের কান্না কি প্রধানমন্ত্রী শুনতে পায় না। আপনার পরিবারের কেউ যদি এক বছর পরিবার থেকে বাইরে থাকে তখন আপনার কি রকম লাগবে সে বিবেচনা আপনার নাই এটা আমরা আশাও করি না। তাদেরকে কীভাবে নির্যাতন করা হচ্ছে আমরা এটা টের পাচ্ছি এর জবাব আপনাকে দিতে হবেই।

গুমের শিকার সাজেদুল ইসলাম সুমনের বোন আফরোজা ইসলাম আখির নেতৃত্বে মানববন্ধনে আরও উপ‌স্থিত ছিলেন গুমের শিকার মো. সোহেলের মেয়ে সাফা, গুমের শিকার মো. কাউসারের মেয়ে মিম, গুমের শিকার মো. পারভেজের মেয়ে রীদী, গুমের শিকার সাজেদুল ইসলাম সবুজের স্ত্রী জিনিয়া পারভিন, গুমের শিকার চৌধুরী আলমের ভাই, গুমের শিকার সাজেদুল ইসলাম সুমনের মেয়ে অরোয়া ইসলাম। এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন মানবাধিকার কর্মী ফরিদা আক্তার, নুর খান লিটন, ঢাকা উত্তরের মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, প্রখ্যাত চিত্রশিল্পী শহীদুল আলম প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
Theme Created By ThemesDealer.Com