Logo
ব্রেকিং নিউজ
এম.আর এডুকেশন নিউজ ২৪ ডটকম এ আপনাদেরকে স্বাগতম: Mreducationnews.com এ বিভাগীয়, জেলা, উপজেলা,স্কুল,কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন, mreducationnews@gmail.com 

১৫ মিনিটেই সব শেষ একজন বিসিএস ক্যাডারের জীবনরে প্রদীপ নিভিয়ে দিল

রিপোর্টার / ২৩ বার
আপডেট : বুধবার, ১১ নভেম্বর, ২০২০

মানসিক চিকিৎসার নামে রাজধানীর আদাবরের মাইন্ড এইড সাইকিয়াট্রি অ্যান্ড ডি-অ্যাডিকশন হাসপাতালে চলে ১৫ মিনিটের ‘ভয়ংকর অবজারভেশন’। সেই অবজারভেশন কক্ষেই চলে নির্মমতা। আর তাতেই নিথর বরিশাল মহানগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) আনিসুল করিম শিপন। হাসপাতালকর্মীদের নির্যাতনেই যে পুলিশের এই কর্মকর্তার মৃত্যু হয়েছে, তা সিসি ক্যামেরার ফুটেজে উঠে এসেছে। এরই মধ্যে এই ঘটনায় গ্রেপ্তার ১০ আসামিকে সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। একই সঙ্গে আগামী ৯ ডিসেম্বর আদালতে এই ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা চিকিৎসার নামে নির্যাতনে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। বিভিন্ন গণমাধ্যম ও ফেসবুকে এই নির্মম ঘটনার সিসি ক্যামেরার ফুটেজটি ভাইরাল হলে দেশজুড়ে শুরু হয় তোলপাড়। পুলিশ কর্মকর্তার এমন মৃত্যুতে স্বজন, সহকর্মী, সহপাঠীসহ সবার মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তাঁরা হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছেন।

এদিকে তদন্তে উঠে এসেছে, পিটিয়ে পুলিশ কর্মকর্তা হত্যায় অভিযুক্ত মাইন্ড এইড সাইকিয়াট্রি অ্যান্ড ডি-অ্যাডিকশন হাসপাতালটির মানসিক রোগী চিকিৎসার কোনো অনুমোদনই নেই। হাসপাতাল চালানোর মতো যে ধরনের বিশেষজ্ঞ মানসিক চিকিৎসক, কাউন্সেলর, জনবল, কাগজপত্র ও সুবিধা দরকার, এর কিছুই ছিল না। মাদকাসক্তি নিরাময়ের চিকিৎসার জন্য এক বছর আগে প্রতিষ্ঠানটি লাইসেন্স নিলেও শর্ত পালন করছিল না। গতকাল স্বাস্থ্যসেবা অধিদপ্তর ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের (ডিএনসি) কর্মকর্তারা পরিদর্শন করে লাইসেন্স স্থগিত এবং বন্ধ করার সুপারিশ করেন। পরে পুলিশ হাসপাতালটি বন্ধ করে দিয়েছে। গত রাতে হাসপাতালটির পরিচালক নিয়াজ মোর্শেদকেও গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এই হাসপাতালের মতোই সারা দেশে মাদকাসক্তি ও মানসিক চিকিৎসার নামে নৈরাজ্য ও নির্যাতনের চিকিৎসা চলছে। বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানের নেই লাইসেন্স। যারা লাইসেন্স নিয়েছে তারাও পরিচালনার শর্তগুলো মানছে না। মনগড়া চিকিৎসার নামে আটকে রেখে নির্যাতন এবং ঘুমের ওষুধ দিয়ে অচেতন করে রাখা হয় সেখানে। গত ১০ বছরে এসব প্রতিষ্ঠানে নির্যাতন ও অপচিকিৎসায় কমপক্ষে ৫০ জনের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও ডিএনসির কর্মকর্তারা বলছেন, লাইসেন্সের আওতায় এনে এসব প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসাব্যবস্থা পর্যবেক্ষণে আনার প্রক্রিয়া চলছে।

১৫ মিনিটের ভয়ংকর অবজারভেশন : আনিসুলের বাবা ফাইজুদ্দিন আহম্মেদ মামলার এজাহারে বলেন, ‘তিন-চার দিন ধরে হঠাৎ চুপচাপ হয়ে যায় আনিসুল। পরিবারের সবার মতামত অনুযায়ী ছেলেকে চিকিৎসার জন্য গত সোমবার  প্রথমে জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসি। পরে আরো উন্নত চিকিৎসার জন্য একই দিন সকাল সাড়ে ১১টার দিকে আদাবরের মাইন্ড এইড হাসপাতালে নিয়ে যাই। আরিফ মাহমুদ জয়, রেদোয়ান সাব্বির ও ডা. নুসরাত ফারজানা আমার ছেলেকে ওই হাসপাতালে ভর্তির প্রক্রিয়া করতে থাকেন। ওই সময় আনিসুল হাসপাতালের কর্মীদের সঙ্গে স্বাভাবিক আচরণ করে। হাসপাতালের নিচতলায় একটি কক্ষে বসে হালকা খাবার খায়। খাবার খাওয়ার পর আনিসুল ওয়াশরুমে যেতে চায়। দুপুর পৌনে ১২টার দিকে আরিফ মাহমুদ জয় ওয়াশরুমে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে দোতলায় নিয়ে যান। তখন আনিসুলের বোন উম্মে সালমা তার সঙ্গে যেতে চাইলে জয় ও রেদোয়ান সাব্বির বাধা দেন এবং কলাপসিবল গেট আটকে দেন।’ ফাইজুদ্দিন আহম্মেদ জানান, তিনিসহ তাঁর আরেক ছেলে রেজাউল করিম ও মেয়ে উম্মে সালমা নিচতলায় ভর্তিপ্রক্রিয়ায় ব্যস্ত ছিলেন। তখন আনিসুলকে চিকিৎসার নামে দোতলার একটি অবজারভেশন কক্ষে নেওয়া হয়। কয়েকজন আনিসুলকে চিকিৎসা করার অজুহাতে সেই কক্ষে মারতে মারতে ঢোকান। কক্ষের ফ্লোরে জোর করে উপুড় করে ফেলে তিন-চারজন হাঁটু দিয়ে পিঠের ওপর চেপে বসেন, কয়েকজন আনিসুলকে পেছনমোড়া করে ওড়না দিয়ে দুই হাত বাঁধেন। একজন মাথার ওপরে চেপে বসেন এবং সবাই মিলে পিঠ, ঘাড়সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে উপর্যুপরি কিল-ঘুষি মেরে আঘাত করেন। এরপর দুপুর ১২টার দিকে আনিসুল নিস্তেজ হয়ে পড়েন। আরিফ মাহমুদ জয় নিচে এসে স্বজনদের ইশারায় ওপরে যেতে বললে স্বজনরা মেঝেতে নিথর আনিসুলকে পান। তখন তাঁরা একটি প্রাইভেট অ্যাম্বুল্যান্সে করে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। ফাইজুদ্দিন আহম্মেদের অভিযোগ, অবৈধ উপায়ে টাকা উপার্জনের জন্য হাসপাতাল পরিচালনা এবং পরিকল্পিতভাবে তাঁর ছেলেকে আঘাত করে হত্যা করা হয়েছে।

গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার (ডিসি) হারুন অর রশীদ বলেন, এটি হাসপাতাল নয়, যেন জেলখানা। চিকিৎসার নামে মির্মমভাবে নির্যাতন করে হত্যার তথ্য পাওয়া গেছে। হাসপাতালের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। এ হাসপাতালের সঙ্গে সরকারি হাসপাতালের কেউ যদি জড়িত থাকে, তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে হাসপাতালটির এক কর্মী বলেন, ওপরের অবজারভেশন কক্ষে নেওয়ার সময় জোরাজুরির একপর্যায়ে হাসপাতালটির মার্কেটিং ম্যানেজার আরিফ মাহমুদ জয়ের গায়ে ধাক্কা লাগে। তখন অন্য কর্মীরা বেপরোয়া হয়ে আনিসুলকে মারতে থাকেন। তাঁর ভাষ্য মতে, ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসে ভবনটি ভাড়া নিয়ে চালু করা হয় হাসপাতালটি। ছয়জনের মালিকানায় হাসপাতালটি চলছে বলে জানান ওই কর্মী।

মাইন্ড এইড হাসপাতালের বাবুর্চি শারমিন আক্তার বলেন, ‘এই হাসপাতালে যেসব রোগী আসতেন তাঁদের প্রথমত এই কক্ষে নিয়ে আসা হতো এবং যাঁরা বেশি উত্তেজিত হতেন তাঁদের এখানে এনে মারধর করা হতো। গতকালও (সোমবার) ওই রোগীকে (আনিসুল করিম শিপন) আমাদের অফিসের কয়েকজন ভাইয়া জোর করে ধরে নিয়ে আসেন এবং তাঁর সঙ্গে ধস্তাধস্তি করেন, একপর্যায়ে তিনি মারা যান।’

তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সোমবার সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেছে, উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করায় তারা পুলিশ কর্মকর্তাকে শান্ত করার চেষ্টা করেছিল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ

পুরাতন সংবাদ

MonTueWedThuFriSatSun
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031   
       
      1
16171819202122
30      
   1234
19202122232425
262728293031 
       
 123456
78910111213
14151617181920
282930    
       
     12
3456789
31      
    123
45678910
       
সেহরির শেষ সময় - ভোর ৫:০৩ পূর্বাহ্ণ
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৫:১৪ অপরাহ্ণ
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৫:১০ পূর্বাহ্ণ
  • ১১:৫১ পূর্বাহ্ণ
  • ৩:৩৫ অপরাহ্ণ
  • ৫:১৪ অপরাহ্ণ
  • ৬:৩২ অপরাহ্ণ
  • ৬:২৪ পূর্বাহ্ণ
Theme Created By ThemesDealer.Com